2 C
New York
Saturday, November 27, 2021
spot_img

নবীনগরে বরখাস্তকৃত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে কোটি টাকার দূর্নীতি ও অনিয়মের অডিট রিপোর্ট জমা দিলেন শিক্ষা কর্মকর্তা মোকাররম হোসেন ***

মাসুম মির্জা, (বিদ্যাকুট থেকে) নবীনগর;

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার শত বছরের প্রাচীন ও পুরনো বিদ্যাপীঠ বিদ্যাকুট অমর বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়টি দীর্ঘদিন ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দ্বারা পরিচালিত হলেও ২০১৬ সালে সরকারি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি মোতাবেক প্রধান শিক্ষকের পদ ভারমুক্ত করে নিয়োগ দেওয়া হয় মোঃ রফিকুল ইসলামকে। নিয়োগ পরীক্ষায় দ্বিতীয় হয়েও প্রভাব খাটিয়ে মোঃ রফিকুল ইসলাম প্রধান শিক্ষক হয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

২০১৯ সালের বিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীন নিরীক্ষা প্রতিবেদন ও ২০২০ সালের নবীনগর উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক গঠিত নিরীক্ষা প্রতিবেদনে বেড়িয়ে আসে প্রধান শিক মোঃ রফিকুল ইসলামের দূর্নীতি ও অনিয়মের চিত্র।

সাময়িক বরখাস্ত হওয়া প্রধান শিক মোঃ রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে অভ্যন্তরীন ও উপজেলা প্রশাসনের নিরীক্ষা প্রতিবেদনে যেসকল অনিয়ম ও দূর্নীতির কথা উল্লেখ করা হয় তার মধ্যে প্রধান শিকের হাতে বিদ্যালয়ের নগদ ৭,৯২,০০০ টাকা যা এখনো জমা হয়নি, মসজিদ খাতে ৩,৫০,০০০ টাকা, দোকান ঘরের জামানত খাতে ১,৫০,০০০ টাকা, দোকান নির্মাণ খাতে অতিরিক্ত ৫৯,৪৩,০০০ টাকা ব্যয় দেখানো, অনুমোদন বিহীন খরচের ভাউচার ৫২,৫৩,২২১ টাকা, অনুমোদন বিহীন বেতন বৃদ্ধি ৮০,১০০ টাকা, উপবৃত্তির টিয়েশনি ফি ২,৮০,০০০ টাকা সহ মোট ১ কোটি ২৯ ল তিনশত একুশ টাকা অনিয়ম/ আত্মসাৎ করেছে বলে উল্লেখ করা হয়।
২০১৫ সালের জুলাই মাস থেকে শুরু করে ২০১৯ সালের জুলাই পর্যন্ত বিদ্যালয়টির পাঁচ বছরের আয়/ব্যয় হিসেবে এ চিত্র ফুটে ওঠে।

উল্লেখ, মসজিদ খাতের ৩ ল ৫০ হাজার টাকা দুই বছর পর কমিটির চাপে জমা দেয় সাময়িক বরখাস্ত হওয়া প্রধান শিক মোঃ রফিকুল ইসলাম। বাকী টাকা উদ্ধারে বার বার কমিটির প থেকে বলা হলেও জমা দেয়নি মোঃ রফিকুল ইসলাম।

এ বিষয়ে বিদ্যালয়টির বর্তমান সভাপতি মোঃ সফিকুর রহমান বলেন.. সাময়িক বরখাস্ত হওয়া প্রধান শিক মোঃ রফিকুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্তকরণ ও তদন্ত/নিরীা প্রতিবেদনে উল্লেখ করা অনিয়ম ও অর্থ আত্মসাৎ বিষয়ে চিঠির মাধ্যমে অবহিত করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন যে ব্যক্তি মসজিদের টাকা আত্মসাৎ করার উদ্দেশ্যে বছরের পর বছর নিজের কাছে রাখতে পারে তার দ্বারা সব কিছুই আত্মসাৎ করা সম্ভব। তার জিম্মায় থাকা বিদ্যালয়ের সকল নথিপত্র ও ব্যাংকের চেক বহি গুলো বর্তমান ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ বিল্লাল মিয়া চৌধুরীর নিকট জমা দেওয়ার জন্য তাকে বিশেষ ভাবে বলা হয়েছে। নবীনগরের বর্তমান সংসদ সদস্য মোঃ এবাদুল করিম বুলবুল মহোদয় সাময়িক বরখাস্ত হওয়া প্রধান শিক মোঃ রফিকুল ইসলামের অনিয়ম ও অর্থ আত্মসাৎ করার বিষয়ে অবগত আছেন এবং তিনি প্রধান শিকের বিরুদ্ধ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ডিও লেটারও দিয়েছেন। নবীনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুদ স্যার নিজে প্রশাসন কর্তৃক প্রদত্ত বিদ্যালয়ের নিরীা প্রতিবেদন যাচাই-বাছাই করে আমাদের চিঠির মাধ্যমে অবহিত করেছেন। আশা করছি সাময়িক বরখাস্ত হওয়া প্রধান শিক মোঃ রফিকুল ইসলামের অর্থ আত্মসাৎ এর বিষয়টি দ্রুত নিষ্পত্তি করে শত বছরের পুরনো এ বিদ্যালয়টিকে কলংক মুক্ত করা হবে।

এ বিষয়ে বিদ্যাকুট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ এনামুল হক বলেন, আমার কাছে উক্ত বিদ্যালয় থেকে আসা এক চিঠিতে অভ্যন্তরীন ও উপজেলা প্রশাসনের নিরীক্ষা প্রতিবেদনে সাময়িক বরখাস্ত হওয়া প্রধান শিক্ষক মোঃ রফিকুল ইসলামের অনিয়ম ও অর্থ আত্মসাৎ করার বিষয়ে প্রমাণ পাওয়া গেছে। আমি আশা করছি বর্তমান কমিটি অভ্যন্তরীন ও উপজেলা প্রশাসনের নিরীক্ষা প্রতিবেদন যাচাই-বাছাই করে তার বিরুদ্ধে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

সাময়িক বরখাস্ত হওয়া প্রধান শিক্ষক মোঃ রফিকুল ইসলামের কাছে তার বিরুদ্ধে অভ্যন্তরীন ও উপজেলা প্রশাসনের নিরীক্ষা প্রতিবেদনে যে সকল অনিয়ম ও অর্থ আত্মসাৎ করার কথা উল্লেখ করা হয়েছে সে বিষয়ে তার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অডিট রিপোর্টে আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সম্পূর্ণ সত্য নয় এবং বিদ্যালয়ের অডিট চলাকালে আমার মতামত ও সাাৎকার নেওয়া হয়নি। বর্তমানে অডিট রিপোর্টের কোনো কপি আমার হাতে আসেনি। রিপোর্টের কপি হাতে পেলে অভিযোগের বিষয়ে বিস্তারিত বলতে পারবো।

এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ও প্রশাসন কর্তৃক নিয়োজিত অডিট কমিটির সদস্য মোকাররম হোসেন বলেন.. আমাদের কাজ ছিল নিরপে ভাবে নিরীক্ষা প্রতিবেদন তৈরি করা। নিরীক্ষা কাজে কারও সাাৎকার ও মতামত নেওয়ার প্রয়োজন হয়না। আমাদের নিরীক্ষা প্রতিবেদন নবীনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুম স্যারের নিকট জমা দেয়া হয়েছে।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

আরও পড়ুন